ছোটদের মনের মত ওয়েব পত্রিকা

(মেক্সিকোর রূপকথা)

সে অ-নে-ক দিন আগের কথা। এক ছিল কাঠুরে। সে ছিল খুব গরীব। বন থেক কাঠ কেটে বাজারে বিক্রি করে সে তার দিন গুজরান করত। তার ছিল তিনটি মেয়ে। তার মধ্যে ছোটটি ছিল সব থেকে সুন্দরী।

একদিন কাঠুরে বনের মধ্যে এক বিশাল গাছ কাটছে। এমন সময়ে , হঠাৎ কোথা থেক এক বিশাল, ভয়ানক ভালুক তেড়ে এসে তার হাত মুচড়ে কুঠারটা কেড়ে নিল

"এটা আমার জঙ্গল। এখানে তোমাকে কাঠ কাটার অনুমতি কে দিল?" হুঙ্কার দিয়ে বলল ভালুক। "তুমি আমার কাঠ চুরি করেছ! এবার তোমাকে নিজের প্রাণ দিয়ে এর দাম দিতে হবে"।

"ভালুক মশাই, আমাকে ক্ষমা করুন", কেঁদে বলল কাঠুরে বেচারা, "আমি তো শুধু একটু কাঠ কাঠছিলাম- এগুলিকে বেচে আমার তিনটে ছোট ছোট মেয়েকে খাইয়ে পরিয়ে রাখি। আপনি যদি আমাকে মেরে ফেলেন, তাহলে তো ওরা না খেতে পেয়ে মারা যাবে"।

ভালুক খানিক ভাবল। তারপরে বলল- "তোমার বাঁচার একটাই মাত্র উপায় আছে। তোমার যে কোন একটি মেয়ের সাথে আমার বিয়ে দাও"। কাঠুরে তো হতবাক! কি বলবে বা কি করবে ভেবেই পেল না। তারপরে যখন ভেবে দেখল যে সে মরে গেলে তার মেয়েগুলি আশ্রয়হীন হয়ে পড়বে, তখন সে ভালুকের প্রস্তাব মেনে নিল।

লেখক পরিচিতি

মহাশ্বেতা রায়

মহাশ্বেতা রায় চলচ্চিত্রবিদ্যা নিয়ে পড়াশোনা করেন। ওয়েব ডিজাইন, ফরমায়েশি লেখালিখি এবং অনুবাদ করা পেশা । একদা রূপনারায়ণপুর, এই মূহুর্তে কলকাতার বাসিন্দা মহাশ্বেতা ইচ্ছামতী ওয়েব পত্রিকার সম্পাদনা এবং বিভিন্ন বিভাগে লেখালিখি ছাড়াও এই ওয়েবসাইটের দেখভাল এবং অলংকরণের কাজ করেন। মূলতঃ ইচ্ছামতীর পাতায় ছোটদের জন্য লিখলেও, মাঝেমধ্যে বড়দের জন্যেও লেখার চেষ্টা করেন।
নয় পেরিয়ে দশে পা

undefined

আরো পড়তে পার...

ফেসবুকে ইচ্ছামতীর বন্ধুরা