ছোটদের মনের মত ওয়েব পত্রিকা
রূপকথার দেশ

সাত সাগরের পারে যেথায়
আছে রাজার দেশ,
সেথায় যাবো পক্ষীরাজে,
পরবো রাজার বেশ।
সঙ্গে নেবো খাপখোলা এক
মস্ত তলোয়ার,
এক কোপেতে দু'খান হবে
এমনি সেটার ধার।

রূপকথার দেশ

বন্দিনী সেই রাজকুমারী
ঘুমিয়ে যেথায় আছে,
এক পলকে পৌঁছে যাব
তক্ষুনি তার কাছে।
যুদ্ধ করে রাক্ষসীদের
করবো কুপোকাত,
প্রাণ ভোমোরা মুঠোয় নিয়ে
করবো বাজিমাত।

রূপকথার দেশ

একটি ফোঁটা রক্ত তাদের
পড়লে ভূমির পরে,
সাতশো আরো রাক্ষসীরা
আসবে নতুন করে।
কিন্তু আমি রাজার কুমার,
ভয় পেলে কি চলে?
মারবো তাদের রক্ত ফোঁটা
একটুও না ফেলে।

রূপকথার দেশ

সোনার কাঠির ছোঁয়ায় দেব
রাজার মেয়ের প্রাণ,
রাক্ষসীদের কবল থেকে
করবো পরিত্রাণ।
কবের থেকে বলছি মা কে
একটা ঘোড়া দাও,
ঘোড়ার কোনো আস্তাবলে
আমায় নিয়ে যাও।

রূপকথার দেশ

জানি আমি কোন্ ঘোড়াটা
পক্ষীরাজের ছানা,
এক নজরেই চিনবো তাকে
নাইবা থাকুক ডানা।
যখন আমি বসবো পিঠে
পরে রাজার বেশ,
উড়ে যাবে আমায় নিয়ে
রূপকথারই দেশ।


ছবিঃ ত্রিপর্ণা মাইতি

লেখক পরিচিতি

কুয়াশা রায়

কুয়াশা রায় গণিত বিষয়ে স্নাতকোত্তর করেছেন। কবিতা লেখার শখ ছোটবেলা থেকেই, আর এখন তা নেশায় পরিণত হয়েছে। যে কোন ধরনের কবিতা লিখতেই তাঁর ভাল লাগে; তবে ছোটদের আনন্দ দিতে পারার মত কবিতা লিখতে পারলে সবচেয়ে বেশী ভাল লাগে।

এই লেখকের অন্যান্য রচনা

নয় পেরিয়ে দশে পা
undefined

আরো পড়তে পার...

ফেসবুকে ইচ্ছামতীর বন্ধুরা