ছোটদের মনের মত ওয়েব পত্রিকা
মকড়ি

চুন্নি আর মুন্নি, দুই যমজ বোন । মুন্নিকে দেখতে পুরো চুন্নিরই মত । কেবল মুন্নির ঠোঁটের উপরে ছোট্ট একটা তিল আছে । চুন্নি প্রায়ই মুখে ছোট্ট একটা তিল লাগিয়ে মুন্নি সেজে নেয় । দুই বোনের মুখে যতই মিল থাকুক না কেন, দুজনের স্বভাবে কিন্তু ফারাক অনেক । মুন্নি হল ধীর স্থির,মন দিয়ে পড়াশোনা করে কিন্তু চুন্নি হল তার একদম উল্টো । সে হল চঞ্চল, দুষ্টু, ফাঁকিবাজ, মুন্নিকে দিয়ে নিজের হোমটাস্ক করিয়ে নেয় । চুন্নির একটা বন্ধু আছে নাম মুঘল-এ-আজম, কসাই কাল্লুর পালিত ছেলে । মুঘল -এ- আজম হল চুন্নির পার্টনার -ইন-ক্রাইম যার মানে হল দস্যিপনার সাথী । সারাদিন দুজনে মিলে এটা ওটা করে । কাল্লুর মুরগির খাঁচা থেকে মুরগি ছেড়ে দেয় । ইস্কুলে একজন পড়া না পারলে অন্যজন টিফিনের ঘণ্টা বাজিয়ে দেয় ।

মকড়

একদিন কি হয়েছে, কাল্লু চুন্নির কাণ্ড টের পেয়ে ইয়াব্বড়ো একটা ছুরি নিয়ে চুন্নিকে তাড়া করে । আর চুন্নিও ঝটপট ওই নকল তিলটা লাগিয়ে মুন্নি সেজে নেয় । আর বাঁচার জন্য মুন্নি কে চুন্নি বানিয়ে ও কোন দিক দিয়ে গেছে সেই রাস্তাটা দেখিয়ে দেয় ।

ও বলাই তো হয়নি, চুন্নি-মুন্নিরা যেই গ্রামে থাকে সেই গ্রামে একটা পোড়োবাড়ি আছে আর তাতে নাকি আছে এক মায়াবি ডাইনি । ওই বাড়িতে যেই ঢোকে সে নাকি আর মানুষ হয়ে বাইরে বেরয় না, বেরয় জন্তু হয়ে । তাই গ্রামের লোকেরা সচরাচর ওই দিকটায় যায়না আর গেলেও বাড়ির ভিতর ঢোকে না ।

যাই হোক, কাল্লু তো নকল মুন্নির কথা শুনে মুন্নিকে এমন তাড়াই না করেছে বেচারা মুন্নিতো ভয় পেয়ে গিয়ে ঢোকে ওই পোড়োবাড়িটায় । এদিকে মুঘল-এ-আজম যখন ঘটনাটা চুন্নিকে বলে, চুন্নিও খুব ভয় পেয়ে যায় । সঙ্গেসঙ্গে ও ছোটে গ্রামের বড়দের ঘটনাটা জানানোর জন্য । কিন্তু কেউই চুন্নির মুখের কথা বিশ্বাস করে না আর তা নিছকই চুন্নির দুষ্টুমি বলে উড়িয়ে দেয় । তাই বেগতিক চুন্নি নিজেই ভয়ে ভয়ে বাড়িটায় ঢোকে মুন্নিকে খুঁজতে । বাড়ির ভিতরের ডাইনিটা ততক্ষণে মুন্নিকে মুরগি বানিয়ে দিয়েছে । ডাইনিটা চুন্নিকে শর্ত দেয় যে , যদি চুন্নি তাকে একশোটা মুরগি উপহার দিতে পারে তবেই সে মুন্নির আসল চেহারা ফিরিয়ে দেবে, নচেৎ নয় ।

কি আর করা, চুন্নিতো বেজারমুখে মুরগিটাকে মানে মুন্নিকে নিয়ে বাড়ি ফিরে আসে । আর তারপর থেকেই প্রাণচঞ্চল মেয়েটা কেমন যেন চুপচাপ হয়ে যায় । যে মেয়েটা আগে সবসময় মুন্নির পিছনে লাগত সে এখন সবসবয় মুন্নিকে আগলে রাখে । রাতের বেলায় নিজের প্রানের ঝুঁকি নিয়েও ডাইনির জন্য কাল্লুর খাঁচা থেকে মুরগি চুরি করে । কিন্তু কাল্লু ইদানিং খুব সজাগ হয়ে যাওয়ায় তাও বন্ধ হয়ে যায় । এদিকে তো ডাইনি চুন্নির উপর রেগেই আগুন । তাই ও মুঘল-এ-আজম কে সবকিছু জানাতে বাধ্য হয় । একদিন খাঁচাভর্তি মুরগি ওই পোড়োবাড়িতে নিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তায় দেখা হয় ওদের ইস্কুলের বিজ্ঞানের মাস্টারমশাই এর সঙ্গে । তখন ওরা মাস্টারমশাইকে সবকিছু খুলে বলে ।

সব শুনে মাস্টারমশাই ওদের বলেন যে ভূত-প্রেত, ডাইনি এসব হল অন্ধবিশ্বাস । তাই তিনি কিছু একটা সন্দেহ করে পোড়োবাড়িটার মধ্যে ঢুকে যান । অনেকক্ষণ মাস্টারমশাই আসছেন না দেখে চুন্নি মুঘল-এ-আজম কে বাড়ির বাইরে রেখে ভিতরে মাস্টারমশাই কে খুঁজতে যায় । ডাইনিটা মাস্টারমশাইকে একটা কুকুরছানা বানিয়ে মুন্নিকে দেয় । চুন্নি কুকুরছানাটিকে নিয়ে বাইরে আসতেই মুঘল-এ-আজম কুকুরছানাটিকে কোলে নিয়ে আদর করতে থাকে । মুঘল-এ-আজম চুন্নিকে মনে করিয়ে দেয় যে এটা ওর পোষা কুকুর আলাদিন । কাল্লু একদিন চুন্নির বল ভিতরে পাঠিয়ে দেওয়ায় আলাদিন একছুটে সেই যে ভিতরে চলে যায় আর ফিরে আসেনি । তখন ওরা বুঝতে পারে যে ওই কুকুরছানাটি যদি তাদের মাস্টারমশাই না হন তাহলে ওই মুরগিটাও মুন্নি না এবং ওই ডাইনিও আসল ডাইনি না । তখন তারা মনে অনেক সাহস সঞ্চয় করে বাড়ির ভিতরে ঢোকে । আর দেখে...................................................

নাহঃ ! ভেতরে ঢুকে চুন্নি কি দেখতে পেল, সেটা আমি বলব না ! জানতে হলে তোমাকে দেখতেই হবে বিশাল ভরদ্বাজ পরিচালিত ছবি "মকড়ি" । ২০০২ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবিটি কান চলচ্চিত্র উৎসবে (২০০৩) প্রদর্শিত হয় এবং সমালোচক দের কাছ থেকে যথেষ্ট প্রসংশা লাভ করে । এছাড়াও ছবিটি শিকাগো ইন্টারনাশ্যানাল চিলড্রেন ফিল্ম ফেস্টিভালেও পুরস্কৃত হয় । চমৎকার গল্পের বুনট, টানটান চিত্রনাট্য এ ছবির অন্যতম সম্পদ ।

চুন্নি-মুন্নির ছরিত্রে শিশুশিল্পী শ্বেতা প্রসাদের অভিনয় অসাধারন । এ ছবিতে অভিনয়ই তাকে অত ছোট বয়সে জাতীয় পুরস্কার এনে দিয়েছে । এছাড়াও মকরন্দ দেশপাণ্ডে, আর মকড়ি, অর্থাৎ ডাইনির চরিত্রে শাবানা আজমি দুর্দান্ত । ছবিটির যথাযথ নির্মাণ ছবিটিকে শুধু ছোটদের কাছেই নয় বড়দের কাছেও সমান আকর্ষণীয় করে তোলে ।

নয় পেরিয়ে দশে পা
undefined

আরও পড়তে পারো...

ফেসবুকে ইচ্ছামতীর বন্ধুরা