ছোটদের মনের মত ওয়েব পত্রিকা

হিরো বললেই আমাদের মনে হয় ইয়াব্বড় চেহারা, গায়ে পালোয়ানের মত জোর, দুষ্টু লোকদের অনায়াসে শায়েস্তা করতে পারে এমন একটা লোক । কি তাই তো? কিন্তু রনির কাছে হিরোর মানেটা কিন্তু মোটেই তা নয় । তারই ক্লাসের অন্য বন্ধুরা কলম্বাসদের মতো মানুষদের হিরো মনে করলেও ওর কাছে আসল হিরো হোল ওর দাদুর পোষা কুকুর হাচিকো । ভাবছো তো, সামান্য একটা কুকুর কি করে একজন হিরো হয়ে উঠতে পারে কারোর কাছে ? সেটাই তো আজ বলবো তোমাকে ।

সে অনেকদিন আগের কথা । খাঁচায় করে সেই জাপান থেকে সুদুর আমেরিকায় কোন একজনের কাছে পাঠানো হচ্ছিলো ছোট্ট এক কুকুরছানাকে । অসাবধানতাবশতঃ আমেরিকার এক রেল স্টেশানে খাঁচাটা একটা ঠেলাগাড়ি থেকে পরে গিয়ে ভেঙে যায় । আর অমনি সেই ভাঙা খাঁচা থেকে বেরিয়ে যায় কুকুরছাটি । কিন্তু শুধু খাঁচা থেকে বেরলে কি হবে ? জনবহুল স্টেশনে খেই হারিয়ে ঘুরে বেড়াতে থাকে সে । স্টেশানের এদিক ওদিকে ঘুরতে ঘুরতে সে এসে হাজির হয় পার্কার উইলসনের সামনে । বেচারা কুকুরছানাটিকে দেখে তিনি বুঝতে পারেন যে নিশ্চয়ই ও হারিয়ে গেছে । তাই তিনি সযত্নে ওকে কোলে তুলে নিয়ে স্টেশান মাস্টারের কাছে যান, আর অনুরোধ করেন যে ওর মনিব ওর খোঁজ করতে এলে, যেন তার কাছে ওকে ফিরিয়ে দেন । কিন্তু স্টেশানমাস্টার তো কিছুতেই ওকে নিজের কাছে রাখতে রাজি হন না । অগত্যা পার্কার ওকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসেন । পার্কার কুকুর ভালোবাসলে কি হবে ? পার্কার এর বউ কেট তো একেবারেই ওকে বাড়িতে রাখতে নারাজ । তাই তো পরের দিন পার্কার ওকে সঙ্গে নিয়েই নিজের কাজে যান । ও বলাই তো হয়নি পার্কার উইলসন হলেন সঙ্গীতের একজন নামজাদা অধ্যাপক । যাই হোক পার্কার ওঁর ছাত্রদের সঙ্গীতের পাঠ পড়ান আর কুকুরছানাটি নিস্পলক ওঁর দিকে তাকিয়ে থাকে; কখনও বা স্টেজে আপন মনে ঘুরে বেড়াতে থাকে । পার্কারের এক জাপানী সহকর্মী ওর গলার কলারে আঁকা এক চিহ্ণ দেখে ওকে বলেন যে সেটি হোল "হাচি", জাপানী ভাষায় যার অর্থ হোল সৌভাগ্যের প্রতীক । তাই দেখে পার্কার ওর নাম দিলেন হাচিকো । পার্কার ওর সাথে খেলা করেন, টিভি দেখেন, ঝড়ের রাতে হাচিকোকে নিজের ঘরে নিয়ে আসেন, একই বাটি থেকে দুজনে পপকর্ণ ভাগ করে খান । আস্তে আস্তে হাচিকো ওঁর জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে দাঁড়ায় । আর ওঁর বউ কেটও আস্তে আস্তে নিজের অজান্তেই হাচিকোকে ভালোবেসে ফেলে ।

অন্য কুকুররা যেমন বল নিয়ে খেলা করে, কেউ বল ছুঁড়ে দিলে ছুট্টে গিয়ে সেটা মুখে করে নিয়ে আসে, হাচিকো কিন্তু সেই ব্যাপারে এক্কেবারেই উদাসীন । কেউ বল ছুঁড়ে দিলে মোটেই সে আনতে যেতে চায়না। ব্যাপারটা পার্কারকে বেশ অবাক করে । যাই হোক সময়ের সাথে সাথে বেড়ে ওঠে হাচিকো । গভীর হয় মনিবের প্রতি ওর ভালোবাসা । সবসময় ও মনিবের কাছে থাকতে চায়, আদর খেতে চায় । প্রতিদিন ও পার্কারের সাথে স্টেশনে যায় আর যতক্ষণ না পার্কার ফেরে ততক্ষণ ও স্টেশনেই অপেক্ষা করে । তার পর দুজনে একসাথে হাঁটতে হাঁটতে বাড়ি ফেরে । এই ব্যাপারটাতেই যেন ওরা অভ্যস্ত হয়ে উঠেছিল আর তার সাথে ওদের আশেপাশের লোকজনরাও ।

একদিন সকালে যেই না পার্কার নিজের কাজে বেরবেন হটাৎ হাচিকো ঘেউ ঘেউ করে চিৎকার শুরু করে দিল । সবাই তো অবাক । যেন কিছুতেই ও সেদিন পার্কারকে বেরতে দিতে চায়না । পার্কার বেরিয়ে যেতেই মুখে করে সেই বলটা নিয়ে ছু্টে যায় স্টেশানে । স্টেশনে গিয়েও সেই এক কাণ্ড । পার্কার বেশ অবাকই হন । কিন্তু কিছুতেই ওর এরকম আচরণ এর কারণটা বুঝে উঠতে পারে্ন না । হাচিকোর সমস্ত নিষেধ সত্বেও যেন পার্কার ট্রেনে উঠে পড়েন । আর তার পরেই...........................

কি এমন ঘটলো যে পার্কারের নাতি রনির কাছে একটা সামান্য একটা কুকুরও নায়ক হয়ে উঠল ? জানতে হলে কিন্তু তোমাকে দেখতেই হবে 'হাচি : আ ডগ'স টেল' । রিচার্ড গিয়ার, জোয়া আলেন, কার্ল অ্যালেক্সান্ডার, সারা রোমার প্রমুখের অভিনয় অসাধারন বললে খুবই কম বলা হয় । আর যাদের কথা না বললে ছবিটাই অসম্পূর্ণ, তারা হোল হাচিকোর চরিত্রে তিন সারমেয় চিকো, লায়লা আর ফরেস্ট । সত্যি একটা অবলা প্রাণী যে এত ভালো অভিনয় করে পারে না দেখলে তোমরা বিশ্বাসই করবেনা ।

হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম
হাচি-আ ডগ'স্‌ টেল এর একটি ফ্রেম

'হাচি-আ ডগ'স টেল' ছবির কিছু দৃশ্য

আর জানো তো এই ছবির গল্প কিন্তু মোটেই কাল্পনিক না..... এক্কেবারে সত্য ঘটনা অবলম্বনে লাসে হলস্টর্ম নির্মিত ছবিটি মুক্তি পায় ২০০৯ সালে । সিয়াটেল আন্তর্জাতিক চলচিত্র উৎসবে প্রথম প্রদর্শিত হয় 'হাচি : আ ডগ'স টেল' । যদিও ১৯৮৭ সালে এই একই গল্প এবং বিষয় নিয়ে আরও একটি ছবি তৈরি হয়েছিল জাপানে, ছবিটির নাম ছিল "হাচিকো মোনোগাতারি" । বলা যেতে পারে 'হাচি : আ ডগ'স টেল' ছবিটি, আশির দশকের 'হাচিকো মোনোগাতারি' নামের জাপানী ছবিটিরই একটি নতুন সংস্করন । এই ছবিটি চলচ্চিত্র সমালোচকদের কাছে যেমন বহুল প্রশংসিত, ঠিক তেমনই সাধারন দর্শকের কাছেও । প্রায় দুই বছর ধরে সারা বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছবিটি প্রদর্শিত হয়েছিল ।

ইংরেজি সাবটাইটেল সহ 'হাচিকো মোনোগাতারি' এবং 'হাচিঃ আ ডগ্‌স্‌ টেল' – দুটি ছবিই দেখতে পাওয়া যাবে ইউটিউবে।


ছবিঃ ফ্রেম ক্যাপচার

এই লেখকের অন্যান্য পোস্ট(গুলি)

undefined

এবারে নতুন কী কী?

আরও পড়তে পারো...

ফেসবুকে ইচ্ছামতীর বন্ধুরা