ছোটদের মনের মত ওয়েব পত্রিকা
বিল্লুর দস্যিপনা

পাড়ায় যেমন দুষ্টু বালকের দল দাদাগিরি করে বেড়ায় এরকম একটা বানরের দুষ্টু দল ছিল দক্ষিন সুন্দরবনের গহিনে। কটকা খালের পাশের চরের নাম টিয়াচর। এই চরে প্রচুর টিয়া পাখির বাস। গাছে গাছে টিয়া আর টিয়া। এখানেই এই দস্যি বানর তার দলবল নিয়ে আড্ডা মারে-ঘুরে বেড়ায়। এ দলের নেতা ছিল ভীষন রকমের দুষ্টু। ওর বয়স বারো-তের হবে তবুও ইঁচড়ে পাকার শেষ। নামটাও স্কুল পালানো বালকের মতো-বিল্লু। দুষ্টু বুদ্ধিতে বিল্লুর মাথা টসটস করে সারাক্ষন। বিল্লুর জ্বালায় সমস্ত বানরকুল অস্থির। বিল্লু তার বাড়ী থেকে শুরু করে সবার সাথেই সুযোগ পেলেই একটা দুষ্টুমি করবে। জন্মের পর থেকেই বিল্লু জ্বালানো শুরু করেছে মা-বাবাকে। এই যেমন এটা খাবো না ওটা খাবো। আমি এখন বড় হয়েছি বড় কলাটা আমাকে দাও, বাদামগুলো একলা খাবো। দাদাভাইকে আদর করো বেশি আমাকে করো না কতো তার পাকামো। আর ভাইদের সাথে ঝগড়া বোনেদের সাথে ঝগড়া করা তার নিত্যদিনের কাজ। এইরকম প্রতিদিনই নানান ভোগান্তি বিল্লুটা ভোগাতে থাকে। গতবছর দুষ্টুমিটা একটু বেশি করায় বাড়ি থেকেই না শুধু পাড়া থেকেও বের করে দিয়েছে বিল্লুর বাবা-মা। বলেছে, যাও তুমি আমাদের কথা শুনবে না শুধুই পাকামো আর মাস্তানী কর, তুমি এবার তোমার মতো চলো- তোমার জন্যে আর বানরজাতির মান সম্মান কিছুই থাকছে না। বিল্লু কিছুই বলেনি কেবল ভেবেছে তার অপরাধ; একটু-ই তো মজা করেছে-পাশের বাড়ির নতুন হাঁটতে শিখেছে যে বানরটা; ওই যে ছুট্টু ওকে চান্স পেয়ে লেজ ধরে ভোঁ ঘুর্ণি দিয়েছে- আর ছুট্টু চিঁইইইই... করে পুরো পাড়া একজায়গায় করে দিয়েছে। তিনদিন ছুট্টুটা কথা পর্যন্ত বলতে পারেনি, শুয়ে শুয়ে কেবল পেঁপের জুস আর বেলের জুস খেয়েছে। এইজন্যেই তো সবার সিদ্ধান্ত মতো বিল্লু আর এই পরিবার না, দল না পুরো পাড়ায় থাকতে পারবে না। কেন সে রোজ রোজ এই বজ্জাতি করবে?

কি আর করা, বিল্লু তাই একলাই বেরিয়ে পড়ে।

পথে দেখা হয়ে যায় তার প্রিয় বন্ধু লাট্টুর সাথে।

কি রে পাগলা কৈ যাস এই ভোঁ রোদ্দুরে, মন খারাপ না’কি?
লাট্টুর কথায় সায় দেয় হুম, কিছুই করলাম না ওমনি বাড়ী থেকে বের করে দিল। যা আমিও প্রতিজ্ঞা করেই বেরিয়েছি আর কখনোই ফিরবো না বাড়ী। আমি বড় হয়েছি আমারও তো একটা মান সম্মান আছে।
হ্যাঁ রে বন্ধু, তোর মতোন আমারও দশা। প্রতিদিন-ই কথা শোনায় বাবা, আমিও যাব তোর সাথে চল। তুই যাবি যেখানে আমিও আজ থেকে সেখানে।
বিল্লু অবাক হয়ে বলে ওঠে সত্যি?
হ্যাঁ সত্যি, আমারও আর ভালো লাগে না। আজ থেকে আমরাই আমাদের গার্জিয়ান কী বলিস বলেই, লাট্টু নীচু করে বিল্লুর সামনের পায়ে বাঁধিয়ে দিল পা আর ফটাস্ করে পড়ে গেল বিল্লু।
তারপর আবার লাট্টু নিজেই বিল্লুর হাত ধরে উঠিয়ে বললো কী ওস্তাদ ক্যামন লাগলো, বিল্লু বললো- মন্দ না তোর বদমায়েশিটা বেশ পাকিয়েছিস দেখছি। চল বেরিয়ে পড়ি।


বিল্লুর খুব কাছের বন্ধু হলো লাট্টু। লাট্টুর সাথেও তেমন তার জমে যায়। দুটো একসাথে থাকলে পাড়ার সমস্ত বড় ভাইরাও ভয়ে কাঁপে। বিল্লু তার বন্ধু লাট্টুকে বললো, শোন আমাকে তো বের করে দিয়েছে আর তোকে তো কেউ গোনেই না তাহলে তুই আর আমি তো এক দলের এখন। লাট্টু বললো, হুঁ আমিও তাই ভাবছি। তাহলে কী করবো আমরা?
বিল্লু বললো, আমরাও একটা দল বানাবো, দুষ্টু বানরের দল। পুরো বনে আমাদের মতো সব দুষ্টু বানর এই দলে থাকবে। আমরা কেবল বনে বনে ঘুরে বেড়াবো আর যেখানে যা পাবো তাই খাবো। আর আমার এই যে ধনু-বান আছে এটা দিয়ে শিকার করবো।


এই লেখকের অন্যান্য পোস্ট(গুলি)

undefined

এবারে নতুন কী কী?

আরও পড়তে পারো...

ফেসবুকে ইচ্ছামতীর বন্ধুরা