ছোটদের মনের মত ওয়েব পত্রিকা

আমেরিকার অনেক নাম করা শহর যেমন নিউইয়র্ক, সান ফ্রানসিসকো, ওয়াশিংটন ডিসি, শিকাগো, বস্টন, লস এন্জেলেস নিয়ে আমরা অনেক গল্প, ভ্রমণকাহিনী, পড়ে থাকি । এই শহর গুলি আমাদের না ঘোরা হলেও নামগুলির সাথে আমরা অত্যন্ত পরিচিত । কেউ আমেরিকা যাচ্ছে শুনলেই আমাদের এই সব চিরাচরিত শহর গুলির কথা প্রথমেই মাথায় আসে । কিন্তু আজ আমি এমন একটি শহরের নাম করব তা অনেকের কাছেই অচেনা । আমেরিকার একটি গুরুত্বপূর্ণ পোর্ট আর পাঁচমিশেলি ঐতিহ্যবাহী বহু পুরোনো এই শহরটির নাম নিউ-অর্লিন্স । লুইসিয়ানা স্টেটের বন্দর শহর । মিসিসিপির মোহানায় অবস্থিত এই শহরে আমার যাবার অভিজ্ঞতা এবং সৌভাগ্য হয়েছিল ১৯৮৯ সালে । ডালাস শহর থেকে গাড়ি করে এক ভোরে আমরা পাড়ি দিয়েছিলাম নিউ-অর্লিন্সের দিকে । টেক্সাস স্টেট আর লুইসিয়ানা স্টেটের মধ্যবর্তী ইন্টারস্টেট হাইওয়ে ধরে মাজদা ৬২৬ গাড়ি নিয়ে আমাদের যাত্রা হল শুরু । সাথে এক থার্মোস কফি, কেক, কুচো নিমকি আর আইসবক্সে "কোল্ড-কাট" (স্যান্ডুইচ এর মাংসের স্লাইস ), ব্রেড আর কয়েকটা কোক ক্যান । ডালাস থেকে নিউঅর্লিন্স প্রায় ৮০০ কিলোমিটার । রাস্তাঘাট ভাল, পথে ছোট বড় ফুড জয়েন্টেরও অভাব নেই কিন্তু স্টুডেন্টের পকেটমানিতে কথায় কথায় রেস্তোরাঁয় থামতে হলে নিউঅর্লিন্সে পৌঁছে মেমেন্টো কেনার সামর্থ্য হবে না তাই খাবার দাবার খানিকটা নিয়ে যাওয়া এই আর কি । গাড়ি করে লংড্রাইভে যেতে যেতে দেখেছি আমেরিকার রাস্তাঘাটের বৈচিত্র্য । এই দেশের মানুষগুলিও সর্বদা প্রাণ দিয়ে নিজের দেশকে আরো সজীব, আরো সুন্দর করার ব্রতে ব্রতী । এত পরিচ্ছন্নতা, এত পরিকল্পনাময় পরিকাঠামো দেখে বারবার মনে হয়েছে ভগবানের নিজের দেশ বোধ হয় এটি । তাই বোধ হয় এত সুন্দর । তাই নিউ অর্লিন্স যাবার সময়ও বারেবারে মনে হয়েছে
"তোমার গান গাওয়া শেষে রেখে যেও তব হাতের কোমল স্পর্শ
আমি আবার ফিরে আসব হেথায় পেরিয়ে আলোকবর্ষ"

টেক্সাসের ধূসর, রুক্ষ প্রকৃতির শুষ্কতা ছেড়ে লুইসিয়ানার সবুজ প্রকৃতির আদ্রর্তা নিয়ে চললাম । গাড়ি ছুটে চলল হাইওয়ে দিয়ে, বাজতে লাগল রবিঠাকুরের গান "পথ দিয়ে কে যায় গো চলে" যত এগোই তত মনে হয় সবুজে-নীলে মিশে প্রকৃতি একাকার । গ্রামের পথ, ভুট্টার ক্ষেত, আখের ক্ষেত, ছোট ছোট খাল-বিল আর বক, সারস তো চললই আমাদের সাথে । ঘন্টা দুয়েক চলার পর একটু বিশ্রাম নিয়ে আবার চলা ।হাতে একটা ম্যাপ নিয়ে পাশের ড্রাইভার ভদ্রলোকটিকে পথ দেখাতে দেখাতে চললাম |তখন মার্চ মাস, গরম একদম নেই । বাতাসে হালকা ঠান্ডার রেশ । শেষ বসন্তের একটুকু ছোঁয়া । রাস্তার ধারে বড় বড় গাছেদের পাতা ঝরে গিয়ে নতুন কচি পাতা । কোনো গাছে পাতা নেই ফুল সর্বস্ব । কত রঙ তাদের... কখনো হলুদ, কখনো বেগুনী । বাদাম গাছের মত কোনো একটা গাছ কমলা রঙের কচি পাতাদের উদ্ধত গ্রীবা মেলে ধরেছে আকাশের সীমায়, কখনো পেরোলাম গাছেদের সুশীতল ছায়াময় এভিনিউ । আমেরিকার বসন্ত বোধ করি সব জায়গায় একই রকম । আরো নীল, ঘন নীল, কচি কলাপাতা সবুজ, গাঢ় সবুজ । মনে হল দোল খেললাম প্রকৃতির সাথে ।

বেলা গড়িয়ে দুপুর সূর্য যখন মাথার ওপর একটা রিক্রিয়েশন এরিয়ায় গাড়ি দাঁড় করিয়ে স্যান্ডুইচ বানালাম ।রাস্তার ধারেই টেবিল ও বেঞ্চ পাতা; টয়লেটের ব্যাবস্থাও আছে সেখানে |গাছের ছায়ায় বসে সারলাম দুপুরের খাওয়া । পাশের একটা গ্যাস স্টেশনে তেল ভরে আবার শুরু করলাম যাওয়া । ইতিমধ্যে টেক্সাসকে ফেলে লুইসিয়ানা ঢুকে পড়েছি । প্রকৃতিগত দিক থেকে কিছু বৈচিত্র চোখে পড়ল; এখানে প্রকৃতি টেক্সাসের মত শুষ্ক ও রুক্ষ নয় বরং জলাভূমির আধিক্য থাকায় অনেক আদ্রর্তার ছোঁয়া পেলাম । নদীর দেশে এসেছি মনে হল । নদীর পাড়, সেতু সবকিছুর রক্ষণাবেক্ষণ দেখে নিজের দেশের জন্য বড় মায়া হতে লাগল । সবশুদ্ধ প্রায় ন' ঘন্টা লাগল নিউঅর্লিন্স পৌঁছতে । বিকেল প্রায় তিনটে তখন ।

পৌঁছলাম সাউথ-ইস্টার্ন লুইসিয়ানার অন্যতম শহর নিউ অর্লিন্সে । ভারতবর্ষে গ্রেট ব্রিটেনের ইস্ট-ইন্ডিয়া কোম্পানি যেমন রাজত্ব করতে এসে কোলকাতায় গড়েছিল তাদের রাজধানী ঠিক তেমনি ৭ই মে, ১৭১৮ সালে ফ্রেঞ্চ মিসিসিপি কোম্পানি আমেরিকায় এসে নিউঅর্লিন্স শহরের গোড়াপত্তন করেছিল । তারপর নেপোলিয়ান এই শহরের আশপাশের এলাকা লুইসিয়ানা স্টেট হিসেবে আমেরিকাকে বিক্রি করেন ১৮০৩ সালে । আমেরিকার দক্ষিণে অবস্থিত বলে ক্রীতদাস প্রথা বহু যুগ ধরে চালু ছিল এখানে তাই জনসংখ্যার বেশিরভাগই কৃষ্ণাঙ্গ । তবে শহরে পা দিয়েই মনে হল প্রাচীন ঐতিহ্যের ছোঁয়া এখানে, পুরোণো বাড়িদের, পুরোণো ট্রামেদের সারি | ফুটপাথ ঘেঁষা গথিক স্টাইলের স্থাপত্য নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে তারা স্বমহিমায় । কেমন একটা মন কেমন করা পুরোণো গন্ধ পেলাম, আমেরিকার অন্য শহর গুলিতে গিয়ে যা পায়নি । ঠিক আমাদের নিউমার্কেট, এস্প্ল্যানেডের গলি আর কলেজ স্ট্রীট কফি হাউসের মাদকতার স্পর্শ অনুভব করলাম । তবে পরিচ্ছন্নতা দেখে আবার কেঁদে উঠল প্রাণ.. পুরোণো কলকাতার জন্যে ।

ডিউক অফ অর্লিন্স, ফিলিপ-ডি-অরলিন্সের এর নামে এই শহরের নাম হয় La Nouvelle-Orleans বা নিউ অর্লিন্স । বিশাল চওড়া তরঙ্গায়িত মিসিসিপি নদীর দুকূল জুড়ে অবস্থিত এই শহরের পশ্চিম জুড়ে রাজকীয় হ্রদ লেক পনচার্ট্রেনের নীল জলরাশি, আর দক্ষিণে গাল্ফ অফ মেক্সিকো । অমেরিকার একটি গুরুত্বপূর্ণ বন্দর নিউঅর্লিন্স | অফশোর এবং অনশোর পেট্রোল এবং ন্যাচারাল গ্যাস উতপাদনের ঘাঁটি ও অমেরিকার পঞ্চম বৃহত বন্দর এটি । ঔপনিবেশিকতার প্রভাবে আমাদের কোলকাতায় যেমন এক সময় ফরাসী, ওলন্দাজ সহ বহু ধর্ম ও সংস্কৃতির অভূতপূর্ব মেলবন্ধন ঘটেছিল নিউ অর্লিন্সে এসে ঠিক তেমন মনে হল । এই শহরটি আমেরিকার এক অনন্য শহর যেখানে নানা মত, নানা পরিধানের মাঝে বিবিধ ভাষা এবং সংস্কৃতির সংমিশ্রণ ঘটেছে । আর বহুমুখী ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক হয়ে নিউঅর্লিন্স বাকি আমেরিকা থেকে যেন বিছিন্ন । নতুন আমেরিকার শপিংমলের গন্ধ আছে এখানে , আছে মোড়ে মোড়ে পিত্জা জয়েন্ট বা বার্গার পয়েন্ট, আছে এক্সপ্রেস ওয়ের চাকচিক্য কিন্তু তার সঙ্গে ঘুরে বেড়ায় প্রাচীন যুগের প্রেতাত্মারা | ইওরোপীয় সংস্কৃতির অনন্দাধারা ব‌ইছে সেখানে ।

একটি মোটেলে গিয়ে উঠলাম । মালপত্র রেখে স্নান করে বিকেল বিকেল বেরিয়ে পড়লাম শহর দেখতে ।প্রথমেই দেখলাম লাল রঙয়ের ঝকঝকে ট্রাম একখানা । ফুটপাথ থেকে নেমে ট্রাম স্টপেজে গিয়ে উঠে পড়লাম ট্রামে । ওখানে বলে স্ট্রীটকার । পাঁচমিনিটের মধ্যে ট্রাম আমাদের নিয়ে গেল নিউ অর্লিন্সের সেন্ট্রাল বিজনেস পয়েন্ট জ্যাকসন স্কোয়ারে । যথারীতি ডালহৌসি স্কোয়ারের মত ব্যস্ত রাজপথ । অফিস পাড়া বা ডাউনটাউন নিউঅর্লিন্স । সন্ধ্যে হয়ে এসেছে তখন । নিউইয়র্কের মতই নিরাপত্তাহীনতার ভয় অনুভব করলাম| পথের ক্লান্তি রয়েছে সাথে তাই সেখানে বেশিক্ষণ না থেকে ফিরে এলাম আবার ট্রামে করে । রাতে হোটেলে ফিরে ডিনার খেয়ে ঘুমোলাম । পরদিন ব্রেকফাস্ট সেরে প্রথমেই গেলাম "vieux carre"| নিউ অর্লিন্সের প্রাণকেন্দ্র ; পুরোণো নিউঅর্লিন্সের ফ্রেঞ্চকোয়ার্টার ছিল এককালে, তাই ফরাসী ঐতিহ্য বহমান এখনো রাস্তার মাঝে |

নয়নভোলানো নিউ অরলিন্স
এই শহরই নাকি জ্যাজ মিউজিকের পীঠস্থান বলে জনপ্রিয় । বিখ্যাত জ্যাজ শিল্পী লুই আমস্ট্রং এখানকারই লোক জানলাম । পথে ঘাটে অণুরণিত হচ্ছে জ্যাজ টিউন । রাস্তার ধারে বাদ্যশিল্পীর জ্যাজ অনুশীলন, বিশালকার স্যাক্সোফোন নিয়ে সঙ্গীত চর্চা দেখে মুগ্ধ হয়ে গেলাম । এ শহরের আকাশে বাতাসে জ্যাজ; আমি জ্যাজের কিছুই বুঝি না কিন্তু কৃষ্ণকায় এই মানুষগুলির সঙ্গীতচর্চায় নিষ্ঠা দেখে যারপরনাই মুগ্ধ হলাম ।
নয়নভোলানো নিউ অরলিন্স
চোখে পড়ল ক্ষুদে চিত্রশিল্পীদের শিল্পকলা ; রাস্তার ফুটপাথে ছবি আঁকার, রঙ, তুলি নিয়ে বিছিয়ে বসেছে । যেমন আমাদের ব‌ইমেলা প্রাঙ্গনে বসে ছবি এঁকে বিক্রি হয় কত সুন্দর ছবি । দাড়িওয়ালা এক শিল্পী কিছু দূরে তার ইজেল নিয়ে দাঁড়িয়ে মন দিয়ে ছবি এঁকে চলেছে । ফ্রান্সের পথে পথে এমন হয় জানতাম কিন্তু এ শহরে দেখে বড় ভাল লাগল ।

ফুটপাথের ধারে প্রাসাদোপম অট্টালিকার আধুনিক বুটিকে রূপান্তকরণ যেন অমুক নং বালিগঞ্জ প্লেস বা তমুক নং ল্যান্সডাউন টেরেসে নামজাদা ডিজাইনার বুটিক! ঐতিহ্যময় বাড়িগুলির এত সুন্দর রক্ষণাবেক্ষণ দেখে মনে হল এরা সত্যি গড়তে জানে বেশি ভাঙতে জানে কম । নয়নভোলানো সব আর্টগ্যালারি দেখলাম । এ শহর যে শিল্প-গীত-বাদ্য-কলার সনাতন পীঠস্থান সে ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই । মজার শহর নিউঅর্লিন্স; সকলে নিজের খেয়ালখুশিতে চলে । কোনো সময়ের অভাব নেই, নেই কোনো একঘেয়েমি । কোনোবাড়ির পোর্টিকোতে গীটারে জ্যাজ বাজায় তরুণ, কোথায় আবার বিউগল বাজিয়ে ভিক্ষা চাইছে যুবক, কোথাও আবার একর্ডিয়ানে সুর তুলতে ব্যস্ত কোনো শিল্পী । মনে হল ল্যাটিন কোয়ার্টার "Vieux Carre" আজও ফরাসীয়ানায় অমলিন।

নয়নভোলানো নিউ অরলিন্স

সুন্দর বাঁধানো ফুটপাথ, রাস্তায় ঘোড়ার গাড়ি, সাবেকি স্ট্রীটল্যাম্প আর টুকটুকে লাল ট্রামগাড়ি সব মিলিয়ে এ শহর বারেবারে মনে করিয়ে দিল আমাদের তিলোত্তমার কথা.... একদা ভারতের রাজধানী পুরোণো কলকাতার কথা । গেলাম সেন্ট পিটার্স স্কোয়ারে । সেন্ট পিটার্স ক্যাথিড্রাল দেখলাম । বাকি আমেরিকার মত প্রোটেস্ট্যান্ট বাইবেল বেল্ট নেই এখানে । প্রধানত ক্যাথলিক ধর্মাবলম্বী এ শহরের মানুষ । এই শহর বিখ্যাত তার প্রাচীন ঐতিহ্যময়তায় । ফ্রেঞ্চ আর স্প্যানিশ সংস্কৃতির ধারক ও বাহক বলে বিখ্যাত "mardi gras" ফেস্টিভাল এখানে হয় জানলাম । সেন্ট পিটার্স স্কোয়ারেও নামা-অনামা কত শিল্পীর চিত্র প্রদর্শনী চলছে, যেন পারি শহরের পুরোনো সাবেকিয়ানা ব‌ইছে নিউঅর্লিন্সের কোণায় কোণায় ।

গেলাম ফুর্তির পাড়া, হুল্লোড় পট্টি ব্যস্তময় বুরবন স্ট্রীটে । রাস্তার ধারের একটা পাবে ঢুকে এখানকার বিশেষ পানীয় "মার্গারিটা" খেলাম । মেক্সিকোর "ব্লু আগাভে" নামক ক্যাকটাস জাতীয় গাছ থেকে তৈরী পানীয় "টেকিলার" সাথে আরো অনেক কিছু মিশিয়ে বানানো হয় এক অসাধারণ পানীয় যার নাম "মার্গারিটা"। লাঞ্চ সারলাম বুর্বন স্ট্রীটের এক পুরোণো রেস্তোরাঁয় । সেদিন প্লেটে সুসজ্জিত কেজুন রাইস আর ক্র-ফিস কারি নিয়ে পৌঁছে গেছিলাম পার্কস্ট্রীটের চাইনিস রেস্তোরাঁয়, এক নস্টালজিয়ায়.... লুইসিয়ানার খাবারে ক্রেওল এবং কেজুন এই দুই অভিনব ঘরানার সংমিশ্রণ ঘটেছে। কেজুন এবং ক্রেওল হল ফ্রেঞ্চ কুইসিনের অপভ্রংশ যার সাথে মিশেছে ইওরোপিয়ান, মেডিটারেনিয়ান, লোকাল রেড ইন্ডিয়ান এবং আফ্রিকান ধারা । কেজুন হল লুইসিয়ানার আদি বাসিন্দার শহুরে খাবার আর ক্রেওল হল পরে আসা কিছু ফরাসীদের এক গ্রাম্য এবং কিছুটা মশলাদার খাবার । গাল্ফ অয়েষ্টার, স্টীমড বা বয়েল্ড ক্র-ফিশ, রেড বিনস আর স্মোকড রাইস হল এই দুই মিশ্র খাবারের প্রধান অঙ্গ । ক্র-ফিশ আমাদের বাগদা চিংড়ির মত কিন্তু লবস্টার বা কাঁকড়ার মত দাঁড়া আছে । ট্রাইবাল কুইজিন তো কি ! সার্ভ করার ধরণ ধারণে সাহেবিয়ানার স্পর্শ । সবশেষে খেলাম এখানকার অথেন্টিক সুইট ডিশ "প্রালিন"। এটি এক প্রকার মিষ্টি, ক্যান্ডি জাতীয়, যা তৈরী হয় ব্রাউনসুগার, পাউডার্ড হোয়াইট সুগার, ক্রিম, মাখন আর "পেকন" বা আখরোটের মত একটি শুকনো ফল দিয়ে ।

গেলাম নিউঅর্লিন্সের কলেজ পাড়ায় । সেন্ট চার্লস এভিনিউতে দুটি বিখ্যাত কলেজ দেখলাম । লয়োলা এবং টিউলেন ইউনিভার্সিটি । রাস্তায় একটা আর্ট এন্ড কিউরিও শপে গিয়ে কিনলাম বিখ্যাত নিউঅর্লিন্স শহরের মুখোশ , পোর্সেলিনের তৈরি এই মাস্ক ব্যবহৃত হয় "মার্ডি গ্রা" ফেষ্টিভালে ।

নয়নভোলানো নিউ অরলিন্স

এবার গেলাম মিসিসিপি দেখতে । ভূগোল পড়ার সাক্ষী হয়ে চিরকাল যে আমাকে হাতছানি দিয়ে ডেকেছে তাকে স্বচক্ষে দেখে আত্মহারা হয়ে গেলাম । নদীর ওপর রিভার ক্রুজের ব্যবস্থা রয়েছে । খুব একটা ব্যয় বহুলও নয় । আমরাও চড়লাম এক মস্ত প্যাডেল স্টীমারে । মিসিসিপি বক্ষে ভেসেছিলাম সেদিন ; আমার ভূগোল ব‌ইয়ের ইতিহাস সামনে দিয়ে বয়ে চলল ।

স্রোতের সুর তুলে নীলঘাগরার কুঁচি লুটিয়ে, জাহাজের ডেকে বসে দেখেছিলাম সূর্যাস্তের লাল রঙ; ওপারের সেন্ট পিটার্স ক্যাথিড্রালও সাক্ষী হয়ে দেখেছিল সে বিকেলের সূর্যাস্তের লাল-কমলার কত খেলা!

মিসিসিপিকে বিদায় জানাতে বড় কষ্ট হয়েছিল মনে মনে বলেছিলাম, "ঠিক এমন করেই থেকো তুমি যেমন আজ আছো, তোমার আকাশ আমার আকাশের চেয়েও নীল দেখে যাচ্ছি, তোমার জলের রং আমার চোখের তারায় ধরে নিয়েছি ; সেদিন দেখেছি পড়ন্ত সূর্য়ের লাল-কমলার খেলা,জলের ওপরে সেই ছায়া আর তার ওপরে আমাদের ছবি তা তুমিও কিন্তু রেখো সুন্দর করে.. নিউ অর্লিন্সকে বলেছিলাম যদি তুমি হারিয়ে যাও একদিন ! যদি কোনো বিধ্বংসী ঝড় এসে তোমায় গ্রাস করে নেয়, তুমি হয়ত তলিয়ে যাবে কিন্তু আমার মনের ক্যানভাসে তুমি বেঁচে থাকবে নয়নভোলানো হয়ে..”

২৯শে আগস্ট ২০০৫ এর এক বিধ্বংসি সাইক্লোন, গাল্ফ অফ মেক্সিকো থেকে উড়ে এসে আছড়ে পড়ে। কুখ্যাত এই সাইক্লোন এখানে "হারিকেন ক্যাটরিনা" নামে পরিচিত। এর আঘাতে মিসিসিপি নদীর বাঁধ ভেঙে যায় এবং সমুদ্রের জলের উচ্ছ্বাসে সারা নিউ অর্লিন্স শহর গভীর জলে নিমগ্ন হয় । ১০০০ এরও বেশি মানুষ প্রাণ হারায় অসংখ্য বাড়িঘর ভেঙে পড়ে এবং ব্যাবসা বাণিজ্যের বিপুল ক্ষতি হয় । পাঁচ বছর আগে ঘটে যাওয়া এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব এখনো মুছে যায়নি নিউ অর্লিন্স থেকে, তার অর্থনীতি থেকে ও শহরের মানুষের মন থেকে । "vieu carre" তে হয়ত এখনো বাজছে সেই জ্যাজ টিউনের সুর কিন্তু এ এক করুণ বিরহের সুর কারণ এখানকার দুটি ফর্চুন ৫০০ কোম্পানির মধ্যে একটির আজ কোনো অস্তিত্ব নেই ..ঝড়ের ধাক্কায় কাবু হয়ে সে নিজেকে বেচে দিয়েছে দূর দেশের অন্য কোম্পানির মালিককে।

undefined

আরও পড়তে পারো...

ফেসবুকে ইচ্ছামতীর বন্ধুরা