খেলাঘরখেলাঘর

মঙ্গোলিয়া

আজ তোমাকে আমি মঙ্গোলিয়ার লোকেদের বেশভূষা সম্বন্ধে কিছু জানাতে চাই । চেঙ্গিজ খানের সময় থেকে আজ পর্যন্ত মঙ্গোলিয়ার পারম্পরিক বেশভূষায় বিশেষ কিছু পরিবর্তন হয়নি । তার কারণ হচ্ছে যে এই সব পারম্পরিক পরিধান মঙ্গোলিয়ার আবহাওয়া আর জীবন যাত্রার সঙ্গে মানানসই । অল্প কিছু পরিবর্তন নিশ্চই হযেছে বাইরের দুনিয়ার সঙ্গে সম্পর্কে আসাতে, কিন্তু তা নগন্য । মঙ্গোলিয়ার রাজধানী আর সবচেয়ে বড় শহর হচ্ছে উলানবাতার । এই শহরের লোকেরা কিন্তু খুব একটা পারম্পরিক বেশভূষা পরেনা । শহরে আজকাল পাশ্চাত্য পরিধান বেশি ব্যবহার হয় । কিন্তু আজো মঙ্গোলিয়ার সুদুর গ্রামাঞ্চলে, লোকে পারম্পরিক বেশভূষা পরাটা পছন্দ করে । বিশেষ করে যারা যাযাবর জীবন যাত্রায় অভ্যস্ত ।

মঙ্গোলিয়ার পারম্পরিক বেশভূষা

মঙ্গোলিয়ার পরম্পরাগত পোষাক হচ্ছে ডীল বা কাফতান । গ্রামাঞ্চলের লোকেরা প্রায় সবসময়ই এই ডীল পরে থাকে আর শহরাঞ্চলের লোকেরা বিশেষ বিশেষ উত্সবের দিনে এই ধরনের কাপড় পরে । এটি একটি গোল গলার, লম্বা, ঢিলে ধরনের গাউন । বামদিকের কাপড় ডান দিকের কাপড়ের ওপর দিয়ে নিয়ে গিয়ে পাঁচটি দড়ি দিয়ে বেঁধে রাখা হয় । এই ডীলের ওপর অনেক ধরনের অলঙ্করণ করা থাকে । ডীলের হাতা বেশ লম্বা হয় আর হা্তের ওপরের দিকটা ওল্টানো থাকে যা কাপের মতো দেখতে লাগে । শীত কালে এই ওল্টানো অংশটি খুলে দেওয়া হয় যাতে পুরো হাত ঢেকে যায় । ডীলের নীচে এক ধরনের ঢিলে পায়জামা পরা হয় । মেয়েরা ডীলের নীচে এক ধরনের ঘাগরাও পরে । এই ধরনের ঘাগরার ডান আর বাম দিকে কুঁচি করা থাকে ।

আগেকার দিনে ছেলে মেয়ে নির্বিশেষে লম্বা চুল রাখতো আর বিনুনি বাঁধতো । ছেলেরা মাথার সামনের দিকের আর কানের দুপাশের চুল কামিয়ে ফেলতো যাতে শুধু মাথার পেছনের দিকে লম্বা চুল থাকে । অবশ্য এসব আর আজকাল খুব একটা দেখা যায়না ।

মঙ্গোলিয়ায় বসবাসকারী বিভিন্ন জায়গার লোকেরা আলাদা আলাদা ধরনের ডীল পরে । এই সব ডীলের রং, অলঙ্করণ আর ছাঁদ আলাদা আলাদা । পুরাতন কালে সামাজিক স্তর হিসেবেও পরিধান আলাদা আলাদা হত । যেমন ধর যারা পশুপালন করতো তাদের ডীল খুবই সাধারণ ধরনের হত যা তারা শীত বা গ্রীষ্ম দুই ঋতুতেই পরতো । আবার মন্দিরের পূজারীরা হলুদ রঙের ডীল পরতো । জমিদাররা আবার খুব সাজানো ডীল পরতো যার ওপর সিল্কের রঙ্গিন ফতুয়া (খান্তাজ) পরা হত আর মাথায় থাকতো সুন্দর রঙ্গিন টুপি ।

মঙ্গোলিয়ার পারম্পরিক বেশভূষা

এই ডীল এ কিন্তু কোনো পকেট থাকেনা । কোমরের কাছে একটি লম্বা সিল্কের কাপড় বাঁধা থাকে যাতে বিভিন্ন দরকারী জিনিস যেমন নস্যির ডিবে, তামাকের ডিবে, ছুরি ইত্যাদি বেঁধে রাখা থাকে । অনেক লোকে এই সিল্কের কাপড় না বেঁধে রুপোর এক ধরনের গয়না পরে থাকে ।

গরমকালে যে হালকা ধরনের ডীল পরা হয় তাকে তের্লেগ ডীল বলা হয় । বসন্ত বা শীত কালে যে ভারী ডীল পরা হয় তার ভেতরে কাপাস বা উলের একটা স্তর থাকে যাতে ঠান্ডা না লাগে । এই ধরনের ডীল কে হভোন্তেই ডীল বা হুর্গান দোতর্তেই ডীল বলা হয় । ভেড়ার চামড়া দিয়ে বানানো এক ধরনের ডীল শীত কালে পরা হয় যাকে ছাগান নেখি ডীল বলা হয় ।

মঙ্গোলিয়ার পারম্পরিক বেশভূষা

বিভিন্ন বয়সের লোকেরা আলাদা আলাদা ডীল পরে । যেমন ধর একটু যারা বয়স্ক লোক তাদের ডীল গুলো খুব একটা রঙচঙে হয় না । বিবাহিত ও অবিবাহিত মেয়েরা আলাদা আলাদা ধরনের ডীল পরে । বিবাহিত মহিলাদের ডীল বেশি রঙ্গিন আর সাজানো হয় ।

মঙ্গোলিয়ানরা অনেক ধরনের রঙ্গিন টুপি পরে যা তাদের পরম্পরাগত বেশভূষার একটি অঙ্গ । বয়স, ঋতু আর স্ত্রী-পুরুষ ভেদ হিসেবে, বা উত্সব হেতু আলাদা আলাদা ধরনের টুপি পরা হয় । মঙ্গোলিয়ানরা প্রায় ৪০০ আলাদা আলাদা ধরনের টুপি পরে । মঙ্গোলিয়ান টুপির ধার প্রায় ওপর দিকে ওল্টানো থাকে আর টুপি ওপরে ঠিক মাঝখানে একটি গিঁট মারা থাকে । আগেকার দিনে ধনী লোকেরা যে সব টুপি পরতো তাতে নানারকমের মনি-রত্ন লাগানো থাকতো । মেয়েদের টুপিতে নানা রঙের সিল্কের রিবন লাগানো থাকে ।

মঙ্গোলিয়ার পারম্পরিক বেশভূষা

মঙ্গোলিয়ান বেশভূষার একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হচ্ছে জুতো । এই জুতো খুব মোটা হয় আর ভেতরে মোটা উলের স্তর লাগানো থাকে যাতে মঙ্গোলিয়ার প্রচন্ড ঠান্ডাতেও কষ্ট না হয় । মঙ্গোলিয়ান জুতোর সামনের দিকটা অনেকটা আমাদের দেশের নাগরা জুতোর মতো ওপর দিকে উল্টানো থাকে । এটি এই জন্য হয় যাতে ঘোড়া চরার সময় পা পিছলে না যায় । অবশ্য এত মোটা জুতোর সামনের দিকটা যদি উল্টানো না থাকতো তাহলে চলাফেরার খুব অসুবিধে হত । এই ধরনের জুতো বেশিরভাগ গ্রামাঞ্চলের লোকেরা পরে, কিন্তু শহরের লোকেরাও যে পরেনা তা নয় । জুতোর ওপর দিকটা সুন্দর ভাবে সাজানো থাকে । এতে কোনো লেস বা জিপার লাগানো থাকেনা । মঙ্গোলিয়ার লোকেরা শীতকালে খুব মোটা উলের মজা ব্যবহার করে ।

মঙ্গোলিয়ার পারম্পরিক বেশভূষা