ছোটদের মনের মত ওয়েব পত্রিকা
ইচ্ছামতীর 'বসন্ত সংখ্যা ২০০৯ ' প্রকাশ হওয়ার পরে আমরা কিছু চিঠি আর মতামত পেয়েছি পাঠকদের কাছ থেকে। তার মধ্যে থেকে কয়েকটি তুলে দিলাম এখানে-
 

অমিত বসু, পুণে
আমরা থাকি পুণে তে। এক বন্ধুর মারফত ইচ্ছামতীর খবর একটু আগে পেলাম আর সঙ্গে সঙ্গে অফিসে বসেই টুক করে দেখলাম ভীষণ ভাল লাগল। ছোটবেলা থেকে সন্দেশ-আনন্দমেলা-কিশোর ভারতী পড়ে, শান্তিনিকেতনের খোলা আকাশের নিচে রোদ-জল মেখে বড় হয়েছিলাম। কর্মসূত্রে দেশে-বিদেশে বিভিন্ন সময়ে গেছি-থেকেছি। কিন্তু বাংলার টান তো নাড়ির টান। তাই আমার চিন্তা ছিল কি করে আমাদের ছয় বছরের মেয়েকে তার নিজের ভাষা, সংস্কৃতি, সাহিত্যের সঙ্গে পরিচিত রাখা যায় সর্বদা- যেখানেই থাকি না কেন।
আপনাদের এই প্রয়াস সে আমার এই গুরু-গম্ভির দায়িত্ব কে অনেকটাই সহায়তা করবে তাতে কোন সন্দেহ নেই। আজই বাড়ি গিয়ে আমরা অসীম উতসাহে আপনাদের পত্রিকা নিয়ে বসব।

অপর্ণা সোম, কলকাতা
...এই সংখ্যায় ছয়টা আঙ্গুলওয়ালা ছেলেটার গল্পটা বেশ ভাল লেগেছে। অনেকদিন বাদে খুব simple, খুব innocent একটা লেখা পড়লাম।And there was a self realization that unnecessarily we have made our lives so complex .I don't know whether the children of this generation specially who has computer and internet facility at home will enjoy it or not because most of them cannot read Bengali but still I'll forward this link to a few of  them....refreshing effort, at least for me, keep it up.

রুচিরা, বেইজিং
...ভাল হয়েছে। নানারকম তথ্য সমৃদ্ধ...ছেলেকে পড়াব ভেবেছি পুরোটা......হারিয়ে যাওয়া খেলা নিয়ে পড়ে বেশ ভাল লাগল...ছোটদের সঙ্গে সঙ্গে বড়রাও দিব্যি enjoy করবে

মিঠু মন্ডল, মুম্বই
ইচ্ছামতী পড়া শুরু করলাম, 'বসন্তের কথা' দিয়ে...শুরুতেই মনটা ভাল হয়ে গেল

অম্বরনাথ ঘোষ, কলকাতা
খুবই ভাল লেগেছে...বিষয় নির্বাচন ও ভাল...আজকালকার যুগে এইরকম চেষ্টা সত্যি খুব দরকার...চেষ্টা সফল হোক, পথ সুগম হোক

কল্লোল দাশগুপ্ত
ভাল লাগল...ইচ্ছামতী আরো সুন্দর হোক

পারমিতা চক্রবর্তী, কলকাতা
খুব ভাল কাজ...অনেক দিন বাদে বেশ 'সন্দেশ' পড়ার অনুভূতি হল

পাভেল ঘোষ, অ্যারিজোনা

অসাধারণ হয়েছে...আমিও খুব মন দিয়ে পড়ি

রতন চক্রবর্তী, আগরতলা

ছবিগুলো ভাল লেগেছে

undefined

ফেসবুকে ইচ্ছামতীর বন্ধুরা