খেলাঘরখেলাঘর

গের

এই যে বন্ধু , তোমাকে আজ আমি কয়েকটা প্রশ্ন করবো .... দেখি তো তুমি উত্তর দিতে পারো কিনা ...
১. বলো তো কোন দেশের অর্ধেক জনসংখ্যা কেবল মাত্র একটি শহরে বাস করে ?
২. কোন দেশের অর্ধেক জনসংখ্যা তাঁবুতে থাকে ?
৩. কোন দেশের রাজধানীকে পৃথিবীর সবচেয়ে ঠান্ডা রাজধানী বলা হয় ?
কি বললে, জানো না ?
আচ্ছা, তাহলে আমিই নাহয় বলে দিচ্ছি । সেই দেশটার নাম হলো মঙ্গোলিয়া । চীন আর রাশিয়ার মাঝে অবস্থিত এই দেশটি এক সময় চেঙ্গিজ খানের রাজ্যের রাজধানী ছিলো । প্রায় ৭০ বছর রাশিয়ার অধীনে থাকার পর ১৯৯০ সালে মঙ্গোলিয়া স্বাধীনতা লাভ করেছিলো ।
বহু যুগ আগে থেকেই এই দেশের বাসিন্দারা যাযাবর জীবনে অভ্যস্ত । এখনো এই দেশের প্রায় অর্ধেক জনসংখ্যা তাঁবুতে বাস করে । এদের মূল ব্যবসা হচ্ছে পশুপালন । তাছাড়াও এরা ছাগল, ভেড়া বা উটের লোম থেকে উল তৈরী করে । এই দেশের এক বিখ্যাত দ্রব্য হচ্ছে কাশ্মির উল যা এখানকার কাশ্মির ছাগলের লোম থেকে তৈরী হয় । আমাদের দেশে এই উল্‌কে পশমিনা উল বলা হয় ।
কিন্তু আজ আমি তোমাদের এই দেশের প্রধান বাসার কথা বলতে চাই । যেহেতু এই দেশের বেশিরভাগ লোক যাযাবর জীবনযাপন করে, সেহেতু তারা পাকা বাড়ি ঘরে  না থেকে, এক বিশেষ ধরনের তাঁবুতে থাকে । এই তাঁবু কে এরা গের বলে । এটাই এদের ড্রইং রুম, এটাই বেডরুম, আবার এটাই এদের রান্নাঘর । সব কিছুই এই তাঁবুর ভেতরে ।
এই ধরনের তাঁবু মঙ্গোলিয়ার সর্বত্র দেখতে পাওয়া যায় । এই গোলাকার তাঁবুগুলি সাদা বা ছাই রঙের মোটা উলের কাপড় দিয়ে ঢাকা থাকে । প্রত্যেকটি পরিবারের একটি বা দু-তিনটে গের থাকে । এই তাঁবু গুলি লাগানো খুব সহজ । একটি তাঁবু লাগাতে প্রায় দু ঘন্টা সময় লাগে । আর খুলতে এক ঘন্টা । আমি তোমাকে বোঝানোর জন্য বেশ কয়েকটি ছবি দিলাম এখানে ।

গের


তাঁবুর দেয়ালটা কাঠের ঝাঁঝরি/জাল দিয়ে তৈরি । মাঝখানে একটি গোলাকার বলয় থাকে যা দুটো শক্ত-পোক্ত কাঠের ওপর লাগানো হয় ।

গের


চারপাশের কাঠের জাল আর মাঝের বলয়ের মাঝে থাকে অনেকগুলো লম্বা লম্বা কাঠের ডান্ডা । তোমরা সাইকেলের চাকা দেখেছ তো । সাইকেলের চাকায় যেমন ভাবে স্পোক গুলো সাজানো থাকে, মোটামুটি ঐরকম ভাবে সাজানো থাকে এই ডান্ডা গুলো । তাঁবুর দরজা সব সময় দক্ষিন দিকে থাকে ।

গের


একবার এই ফ্রেম টি তৈরি হয়ে গেলে, তারপর এর ওপর মোটা উলের কাপড় দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয় । এই সব কিছুই মোটা দড়ি দিয়ে বেঁধে রাখা হয় যাতে বাতাসে  উড়ে না যায় ।

গের


শীতকালে এখানে তাপমাত্রা -৪০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড এর নিচে চলে যেতে পারে । তাই শীতের সময় আরও বেশি উলের কাপড় দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয় যাতে তাঁবুর ভেতরটা গরম থাকে । গরমকালে তাঁবুর নীচের দিকের কাপড়গুলো উল্টে ওপরে উঠিয়ে দেওয়া হয় যাতে ভেতরে হাওয়া আসতে পারে ।

গের

গের


তাঁবু গুলোকে গরম রাখার জন্য, তাঁবুর মাঝামাঝি জায়গায় একটি করে লোহার চুল্লি রাখা হয় । এতে কাঠের টুকরো, গোবর বা কয়লা জ্বালানো হয় যাতে এটি গরম হয়ে যায় আর তাঁবুকে গরম রাখে । তাঁবুর ভেতরে যাতে ধুঁয়ো না হয় তার জন্য এই চুল্লির ওপরে একটি লোহার পাইপ ফিট করা থাকে যাতে কাঠের ধুঁয়ো তাঁবুর বাইরে চলে যায় ।
তাঁবুতে কোন জিনিষটা কোথায় থাকবে তার একটি নির্দিষ্ট নিয়ম আছে । তাঁবুতে কোনো অতিথি এলে তাকে তাঁবুর বাঁদিকে বসানো হয় । গুরুত্বপূর্ণ অতিথিদের  তাঁবুর ভেতরের দিকে আর অন্যদের দরজার কাছে বসানো হয় । পরিবারের লোকেরা তাঁবুর ডানদিকে বসে । রান্নাঘরের জিনিসপত্র ডানদিকে রাখা হয় । পূজোর স্থান দরজার ঠিক উল্টো দিকে । বিছানা দরজার বাম এবং ডান দিকে রাখা হয় ।

গের


আজকাল অনেক গেরে আধুনিক সুবিধে সম্পন্ন জিনিসপত্র রাখা থাকে । যেমন কি সোলার পাওয়ার প্যানেল, টিভি, ফ্রিজ, অ্যান্টেনা, ওয়াশিং মেশিন, ইত্যাদি ।

গের


এই ধরণের তাঁবুতে থাকার সুবিধে হচ্ছে যে যখন ইচ্ছে, যেখানে ইচ্ছে যাওয়া যায় । শীতকালে এরা ছোট ছোট পাহাড়ে ঘেরা জায়গায় তাঁবু পেতে থাকে । আবার গরমকালে তাঁবু গুটিয়ে, ঘোড়াগাড়ী করে পাহাড়ি অঞ্চল ছেড়ে সমতল ভূমিতে চলে আসে যাতে পশুরা (ঘোড়া, উট, ভেড়া, ছাগল, গরু) ঘাস খেতে পায় ।


লেখা ও ছবিঃ
ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য
উলান বাটর, মঙ্গোলিয়া