খেলাঘরখেলাঘর

শুভ  নববর্ষ

এসে গেল আরেকটা নতুন বঙ্গাব্দ - ১৪১৯। আজ  পয়লা জৈষ্ঠ। পয়লা বৈশাখ থেকে এক মাস পেরিয়ে এসেছে। এত দেরীতে 'শুভ নববর্ষ' বলা চলে কি?  চলে, চলে, মাথা নেড়ে  জানাল ইচ্ছামতী। ইচ্ছামতী যখন সায় দিচ্ছেই, তাহলে তোমাকে বলেই ফেলি - 'শুভ নববর্ষ'।  এই নতুন বছরে তুমি ভাল আছ তো? কেমন কাটল বছরের প্রথম দিন ? আমাদের তো বেশ কাটল। ইচ্ছামতী আর আমি একসাথে গপ্পো-সপ্পো করে, ভাল মন্দ খেয়ে বেশ কাটিয়ে দিলাম নতুন বছরের প্রথম দিন। তার সাথে ইচ্ছামতী একটু একটু করে সাজগোজও করতে লাগল - নতুন গ্রীষ্ম সংখ্যার নতুন সাজের জন্য।

তুমিওতো নতুনের আনন্দে ভরপুর এখন, তাই না? নতুন ক্লাসে উঠেছ, হাতে এসেছে নতুন নতুন পড়ার বই, হয়ত বা সাথে নতুন ব্যাগ আর জলের বোতলও? এই নতুন ক্লাসে তোমাকে কি নতুন কোন ভাষা শিখতে হবে, অথবা নতুন বিষয় পড়তে হবে? আমাদের চিঠি লিখে জানিও নতুন কি কি শিখবে তুমি এই বছরে।

পাঠ্য বিষয়ের কথা যখন উঠল,  তাহলে বলি, তুমি কি জান, জিওলজি (geology)  বা ভূতত্ববিদ্যা কাকে বলা হয়?

ভূতত্ব
ভূতাত্বিকেরা  শিলা পরীক্ষা করে দেখছেন

ভূস্তর, শিলা, এই সবের ওপর ভিত্তি করে পৃথিবীর ইতিহাস সম্পর্কিত যে বিজ্ঞান, তাকে বলে জিওলজি বা ভূতত্ববিদ্যা।  স্কুলে ভূগোল পড়ার সময়ে আমরা অল্প-স্বল্প ভূতত্ব নিয়ে পড়াশোনা করে থাকি। কিন্তু তার বাইরেও ভূতত্বের পরিধি বিশাল। আমাদের পৃথিবী জুড়ে রয়েছে কত পাহাড়, পর্বত, গিরিখাত, নদী, সমুদ্র, মরুভূমি। জল , বাতাস, বরফ এবং উষ্ণতার  মত প্রাকৃতিক শক্তি দিনের পর দিন নানারকমের ক্ষয়কার্য চালিয়ে সৃষ্টি করছে ভূমির নানা রকমের রূপ । তাই আমরা দেখতে পাই  ছোট বড় পাহাড়, মালভূমি, উপত্যকা, ঝরণা, হ্রদ, ব-দ্বীপ। পৃথিবীর ভেতরে কি আছে, কিভাবে কোটি কোটি বছর ধরে পৃথিবী  চেহারা একটু একটু করে বদলেছে, আর ভবিষ্যতে কিরকম হতে পারে -এইসব নিয়েই পড়াশোনা করা হয় ভূতত্ববিদ্যায়। ইচ্ছামতীর এই সংখ্যার প্রচ্ছদকাহিনী এবারে পৃথিবীর কিছু অবাক করা ভূতাত্বিক গঠন এবং কার্যকলাপ নিয়ে। খুবই কাকতালীয়ভাবে, মাত্র কিছুদিন আগেই ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপের কাছে মাটির গভীরে এক ভূমিকম্প হয়েছিল। তার প্রভাবে কেঁপে উঠেছিল কলকাতা শহরও। প্রায় ২৮টি দেশে সুনামি সতর্কতা জারি করা হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত অবশ্য সুনামি হয়নি। অন্যান্য কিছু অবাক করা ভূতাত্বিক গঠনের সম্বন্ধে জানার সাথে সাথে, এবারের প্রচ্ছদকাহিনীতে থাকছে সুনামির কথাও।

সচীন-রাহুল-যুবরাজ

অন্যদিকে, ক্রিকেটের দুনিয়ায় শুনতে পাওয়া গেল ভালো-মন্দ মেশানো বেশ কিছু খবর। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে  ওয়ান-ডে এবং টেস্ট মিলিয়ে একশোটা একশো রান করে রেকর্ড গড়লেন সচিন তেন্ডুলকর। সচিনই একমাত্র ক্রিকেটার যিনি এই বিরল সাফল্যের কাজ করতে পেরেছেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেন ভারতীয় দলের বহুদিনের ভরসা 'দ্য ওয়াল' রাহুল দ্রাবিড। সৌরভ গাঙ্গুলি  আই-পি-এল- এ ফিরে 'পুণে ওয়ারিয়র্সে' যোগ দিলেন। আর যুবরাজ সিং? দুরারোগ্য ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছিলেন সবার প্রিয় এই ক্রিকেটার। কিন্তু মনের জোরে লড়াই চালিয়ে অনেকটা সুস্থ হয়ে দেশে ফিরেছেন তিনি। আর সবাই আশা করছে, খুব তাড়াতাড়ি যুবরাজকে আবার ব্যাট হাতে দেখতে পাওয়া যাবে ক্রিকেটের মাঠে।

আজ এখানেই শেষ করি। এই গ্রীষ্মে, নতুন ক্লাসের নতুন পড়াশোনার ফাঁকে ফাঁকে, তোমার সংগী হোক ইচ্ছামতী।

ভালো থেক।

চাঁদের বুড়ি
১৫ই মে, ২০১২
১লা জৈষ্ঠ, ১৪১৯





এই লেখকের অন্যান্য রচনা