সূচীপত্র -গ্রীষ্ম সংখ্যা ২০১৩

খেলাঘরখেলাঘর

নদীমাতৃক দক্ষিণবঙ্গের অন্যতম বৃহত জেলা মেদিনীপুর । সেখানে যেমন আছে নদীর জলে পুষ্ট সবুজ গভীর জঙ্গল ঠিক তেমনি আছে ঐ জঙ্গলের স্যাঁতস্যাঁতে জমিতে অগুন্তি সরীসৃপের পরিবার । ছোট বড় নদীর জল , ঝোপঝাড়ে বেড়ে ওঠা এই সরীসৃপদের মধ্যে বাংলার বিখ্যাত সব সাপেরা গড়ে তুলেছে এক সুন্দর ইকোসিস্টেম । তাদের খুব পছন্দের জায়গা পশ্চিমবাংলার এই স্থানটি । ঘন জঙ্গলের মধ্যে সূর্যালোক প্রবেশ করেনা, বানভাসি শ্রাবণ-ভাদ্রের থৈ থৈ নদীর দুকুল ছাপিয়ে জল ও চলে আসে সেই জঙ্গলে আর মনের সুখে দিন যাপন করে শঙ্খচূড়, কালনাগিনী, গোখরো, খরিস, চন্দ্রবোড়া সমেত আরো নানা অজানা সাপেরা । এদিকে এই বিশাল জেলায় আছে অঢেল চাষযোগ্য জমি । তাই কৃষকেরা রোজ মা মনসাকে স্মরণ করে ক্ষেতে যায় চাষ করতে । শীতে একটু আরাম । সাপেরা তখন হাইবারনেট করে, গর্তের নীচে শীতঘুম দেয় কিন্তু প্রচন্ড গরমের দাবদাহে বাইরে চলে আসে । বর্ষায় দেখায় উদ্দাম নৃত্য। চাষীবৌ কুঁড়ের ধারে পথ চেয়ে বসে ভাবে স্বামীর কথা । বর্ষার হাঁটুজলে ধানচারা লাগাতে গিয়ে যদি সাপে কাটে তার স্বামীকে ।

সে জানে সাপকে নাকি জ্বালাতন না করলে সে কিচ্ছু করেনা কিন্তু তার ল্যাজে পা পড়ে গেলে সে ভয়ানক রেগে যায় । আর বিষধর সাপ হলে তো আর কথাই নেই ! কৃষক যখন আর হাল দিতে পারেনা বৌ তার চেলেমেয়েকে নিয়ে মাঠে যায় । গিয়ে আবার ঐ এক চিন্তা ঘোরে মাথার মধ্যে । সেবার সাপে কেটেছিল গ্রামের একটা বাচ্চা ছেলেকে । ঝাড়ফুঁক করল ওঝা এসে । আয়ুর্বেদিক ডাক্তার এসে বিষ বের করে ওষুধ লাগিয়ে দিল । অনেক কষ্টে মা মনসার দয়ায় সে যাত্রায় বেঁচে গেল ছেলেটা । সন্ধ্যেবেলা কুঁড়েঘরের দাওয়ায় বসে মেয়েরা মনসার ভাসান গীত গাইল । এইভাবে কাটে সব চাষীদের জীবন । ওরা ধান বোনে আমাদের জন্য কিন্তু সেই ধান বোনার পেছনে কত ভয় মেশানো কাহিনী থাকে তা তো আমরা জানিওনা । সেবার ধানের গোলায় সাপ ঢুকে সে কি বিপত্তি । আরেকবার মাটির ঘরের চালে লাউয়ের মাচা থেকে লাউ আনতে গিয়ে একটা সবুজ লাউডগা তো বাচ্চা একটা চাষীবৌয়ের হাতে জড়িয়ে সে কি কান্ড! মেয়েটা তো ভয়েই অজ্ঞান । ভাগ্যি লাউডগা সাপের বিষ নেই ! একটু বেশি বৃষ্টি হলে ঘর-উঠোন যখন জলে জলময় হয় তখন দু-একটা জলঢোঁড়া ঢুকে পড়ে ঘরের মধ্যে । মাটির ঘরে না আছে ইলেকট্রিক না আছে পাকা ছাদ । বেশি বৃষ্টি হলে দু'একটা চিতি সাপকে চুপচাপ মশারীর দড়ির সাথে জড়িয়েও থাকতে দেখেছে ওরা । খোলস ছেড়ে সাপেরা যখন জঙ্গলের মধ্যে ঢুকে পড়ে তখন কত বিচিত্র রংয়ের খোলস দেখে গ্রামের লোকে । আবার সেই ভয় মনের মধ্যে পুষে রেখে দিনের পর দিন বুক বেঁধে কাটায় ওরা !

অথচ সাপের ভয় থাকলে কি হবে এই মেদিনীপুরই ছিল ভারতের ব্রিটিশ হটাও আন্দোলনের মুখ্য কেন্দ্র । ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ক্ষুদিরাম বসুর মত মানুষের জন্মস্থান এই মেদিনীপুর । কংসাবতী, সুবর্ণরেখা, শিলাবতী প্রভৃতি নদীর জলে পুষ্ট, ধনধান্য-পুষ্প-ভরা এই জেলার মাটি । কুরুম্ভেরা, গোপগড়, কর্ণাগড়, ময়নাগড়, বর্গভীমা, খড়গেশ্বর, হিড়িম্বেশ্বরী, পাথরার মত মন্দিরময় । ঝাড়গ্রামের মত স্বাস্থ্যকর ট্যুরিষ্ট স্পট আছে এখানে । পূর্ব মেদিনীপুরে আছে দীঘার সমুদ্র সৈকত । বঙ্গোপসাগরের ঢেউ এসে আছড়ে পড়ে আরো আরো ট্যুরিষ্ট কেন্দ্র হয়েছে তাজপুর, মন্দারমণি আর চন্দনেশ্বরে ।

পশ্চিম মেদিনীপুরের জকপুরের কাছে এমন এক জঙ্গল আছে যাকে গ্রামের মানুষেরা মনসার জঙ্গল বলে । ঐ জঙ্গলের দক্ষিণ পাশে পূর্ব-পশ্চিমে বিস্তারিত এক গভীর খাল ছিল । বর্ষার সময় অতিবৃষ্টিতে ঐ খাল দিয়ে খড়গপুর সহ পশ্চিমের উঁচু জায়গায় বৃষ্টির জল হৈ হৈ করে বয়ে যেত পুব দিকে আর বন্যার আকারে জমেই থাকত সেখানে । শরতের কাশফুলের রমরমায় খালপাড় তখন মেতে উঠত পুজোর আনন্দে । এখানকার কৃষকেরা মনের আনন্দে ধানচাষ করে আরভাদু পরব উদ্‌যাপন করে মনের আনন্দে কিন্তু তবুও কোথায় যেন একটু অশান্তি সর্বক্ষণের ...ঐ সর্পকুলে বসবাসের জন্য । মা মনসাকে সর্বদা স্মরনে-মননে রাখে । শ্রাবণ-ভাদ্রের শনি-মঙ্গলবারে মনসার পুজো দেয় । শুধু সাপের কারণেই নয় মনসাকে তারা কৃষিদেবী রূপেও মানে । তাদের রুজি-রোজগার, সম্বচ্ছরের খোরাকি সব ঐ ধান চাষকে ঘিরে । পর্যাপ্ত বর্ষায় প্রচুর ধানে মাঠঘাট যাতে সবুজে ভরে ওঠে, তাই সমস্ত চাষীরা একজোট হয়ে ঐ জঙ্গলের কোনো এক ধারে মা মনসার আরাধনা করে চলে বছরের পর বছর ধরে । পাকা ধান তোলার সময় প্রত্যেকে এক আঁটি করে পাকা ধান মাথায় করে মা মনসার থানে রেখে এসে মা'কে মিনতি জানায়: "মা গো, আমরা ছাপোষা মানুষ, দিন আনি দিন খাই, পেটের দায়ে চাষ করছি, আমাদের অপরাধ মার্জনা কোরো, সম্বচ্ছর সন্তানদের দুধেভাতে রেখো, পরের বছর যেন আবার চাষ করে তোমাকে ফসল দিয়ে পুজো দিতে পারি মা "

প্রায় চারশো বছর আগে জকপুরের জমিদার যোগেশ্বর রায় একদিন ভোর রাতে মা মনসার স্বপ্নাদেশ পেলেন । তিনি স্পষ্ট দেখেন, চতুর্ভুজা মা মনসা হাত নেড়ে নেড়ে তাকে বলছেন, ঐ জঙ্গলেই মা আছেন । জমিদার যেন মায়ের পুজোর প্রচার করেন ।

ভয়ে ঘুম থেকে উঠে পড়ে জমিদার কাঁপতে কাঁপতে ঘটি ঘটি জল খেয়ে স্ত্রীকে ডেকে বলেন সব কথা । মূহুর্তের মধ্যে কাকভোরে জমিদার বাড়িতে যে যেখানে ছিল হাজির হয়ে যায় । ঐ জঙ্গলের সাপের কথা সকলের জানা । মা মনসার থান বলে জঙ্গলে যে স্থানটিতে স্থানীয় মানুষ পুজো করে সেখানে এক মস্ত উইঢিপি । তার নীচে কিলবিল করে অসংখ্য সাপ । একথা সকলে প্রত্যক্ষ করেছে । সূর্যোদয়ের পরেই সেদিন জমিদার সদলবলে ঐ স্থানে গিয়ে জঙ্গল পরিষ্কার করে মায়ের নিয়মিত পুজোর আদেশ দেন । ক্রমে কাঠুরেরা কুঠার আর হাঁসুয়া দিয়ে ভয়ে ভয়ে জঙ্গল কেটে কিছুটা সাফ করে ফেলে । মায়ের থানে আসার রাস্তাও কাটা হতে থাকে । চোখের সামনে তারা বিষধর সাপেদের রাস্তা এপার ওপার করতে দেখে । উইঢিপিটিকে কংক্রিটে মুড়ে দেওয়া হয় । পাশে একটি লাল পদ্ম বানানো হয় উইঢিপির মাটি দিয়ে । ঢাক, শাঁখ ও ঘন্টার ধ্বনিতে জঙ্গলের চির নীরবতাকে ভেঙে দিয়ে মনসার থানকে মর্যাদা দেন জমিদার যোগেশ্বর রায় । নারীপুরুষ নিজের হাতে মায়ের পুজো দেয় সেখানে । যেমন করে আমরাও পুজো করলাম ফুল, দুধ আর কলা কিনে । উইঢিপির ওপরেই দিধ ঢেলে সিঁদুর মাখিয়ে পুজো করা হল মা মনসা কে । ইচ্ছামত যা খুশি দাও । না দিলেও কেউ কিছু বলবেনা । পান্ডা বা পূজারীরও উপদ্রব নেই ।

বর্তমানে যে স্থানে মায়ের পুজো হয় সেই স্থানে আমরা গেছিলাম খড়গপুর থেকে ।

ছবি

খড়গপুর থেকে NH-2 ধরে কোলকাতার দিকে গিয়ে জকপুর রেলষ্টেশনের দক্ষিণ পাশ দিয়ে ডুবগোহাল স্কুলের পাশ দিয়ে ম‌ইশ্যা গ্রামের ভিতর দিয়ে মনসা মন্দিরে যাওয়া যায় । খড়গপুর স্টশন থেকে লোকাল ট্রেনে জকপুর বা মাদপুর স্টেশনে নেমে ট্রেকার বা ভাড়ার গাড়িতে মন্দিরে যাওয়া যায় । কোলকাতা বা হাওড়া থেকে লোকালে মাদপুর বা জকপুর নেমে এক‌ইভাবে মন্দিরে আসতে হয় ।

পশ্চিম মেদিনীপুরের জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে সে এক এডভেঞ্চার! আমাদের হাতে গুগ্‌লম্যাপ । আমরা জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে গ্রামের সরু মেঠো লাল রাস্তার মধ্যে দিয়ে হঠাত আবিষ্কার করলাম ম‌ইশ্যা । গাড়ির কাঁচ নামাতেই বনফুলের সোঁদা গন্ধ নাকে এল । আর পাখপাখালির কিচিরমিচির । কোথাও একটু ধানজমি কোথাও আবার সর্ষে ক্ষেতের হলুদ । সজনেফুলের গন্ধ বাতাস চারিদিক আচ্ছন্ন করে রেখেছে । আমগাছে মুকুল এসেছে সবে । কুঁড়ে ঘরের লাগোয়া একফালি জমিতে কত কত আলু, ফুলকপি, টমেটো ! কি ভলো লাগে আমার এসব তারিয়ে তারিয়ে দেখতে ! সেই জমিদারের আমল থেকে ঐ মনসা থানে মা বিষহরির পুজো হয়ে আসছে । খোলা অকাশের নীচে ঐ উইঢিপির কুন্ডলী ও পদ্মফুলে সারা বছর ধরে পুণ্যার্থীরা ফুল চড়াতে আসেন শুধু কৃষির জন্য এবং সাপের দংশনে যাতে কোনো ক্ষতি না হয় সেই জন্য । কথায় বলে "বিশ্বাসে মিলায় বস্তু তর্কে বহুদূর" তাই প্রতিবছর চৈত্রমাসের তৃতীয় মঙ্গলবারে এখানে মনসামায়ের মহাপূজা আর মেলা হয় । নিজের হাতে পুজো দেন দলে দলে পুণ্যার্থী । পশ্চিমবাংলায় গঙ্গাসাগরের মেলার পর এটি দ্বিতীয় বড় জনসমাগমের মেলা । সেই জমিদারের আমলে এই পুজোর রমরমা শুরু হতে থাকে । তারপর বৃটিশ সরকার মাদপুর থেকে জকপুর পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণের পরিকল্পনা করে। মায়ের থানে দাঁড়িয়ে রেললাইন এবং অনবরত ট্রেন যাওয়া আসা দেখা যায় । মন যেন হারিয়ে যায় কোথায় । সেই ট্রেনের বাঁশী আর মন্দিরের স্থান-মাহাত্ম্য মিলে মিশে একাকার হয়ে যায় এক আকাশের নীচে ।

ছবি

স্থানীয় মানুষ বৃটিশদের অনেক কাকুতি মিনতি জানিয়ে মায়ের থানের বেদীকে বাঁচিয়ে রেলের লাইন নির্মাণ করতে অনুরোধ জানিয়েছিল । সাহেবরা হেসে কুটিপাটি ! সেই কথা শুনে বলেছিল "হিন্দুডের ওয়াটার, স্কাই, ফায়ার, এসবের ডেব্‌টা আঠে । বাট্‌ স্নেকের ডেব্‌টা! হোয়াট ইজ দিস?" বলে অট্টহাসিতে ফেটে পড়েছে । মানুষেরা সাহেবকে অনেক ভয় দেখাল এবং সম্মিলিত হয়ে বাধা দিল। তাদের বাধা তোয়াক্কা না করে হাজার হাজার বাইরে থেকে আনা শ্রমিক দিয়ে বাহুবলের দ্বারা জঙ্গল পরিষ্কারের কাজ শুরু করে দিল । হাজার হাজার বিষধর সাপ জঙ্গলের মধ্যে থেকে উঁকিঝুঁকি দিতে দিতে অতঃপর সেই বৃটিশ ইঞ্জিনিয়ার সহ আরো অনেক উচ্চপদস্থ কর্মচারীকে দংশন করে তাদের প্রাণ নিল । এই পরিস্থিতিতে শ্রমিকেরা প্রাণের ভয়ে ত্রিসীমানা ছেড়ে জীবন নিয়ে দৌড়ে পালাল । নতুন শ্রমিক এসে ক্রুদ্ধ হয়ে আগুন লাগিয়ে দিল জঙ্গলে । সর্পকুল বিনষ্ট হবে এই আশায় । কিন্তু বিফল মনোরথ হয়ে ফিরে গেল তারা । তারপর জমিদার প্রজাদের সঙ্গে করে জঙ্গলের মধ্যে সরু রাস্তা কাটিয়ে অনায়াস যাতায়াতের ব্যবস্থা করে দিলেন এবং আবার সশরীরে ফিরে এলেন প্রজাদের নিয়ে । মা মনসা নিজের মন্দিরে প্রবেশের পথ এইভাবে করে দিলেন ।

ছবি

মেদিনীপুর সহ সমগ্র দক্ষিণবাংলার মানুষ পুত্রলাভের আশায়, বেকারের চাকুরীর আশায়, হারানো গরুর খোঁজে, মারণ ব্যাধির নিরাময়ে মায়ের থানে মানত করে যায় । মেলা ও মহাপুজোর দিন নানাপ্রকার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে পুজো কমিটি । স্বেচ্ছায় রক্তদান শিবির, বস্ত্রদান, দুঃস্থ ছাত্রদের পুস্তকদানের মত উন্নয়ন মূলক কাজও করে থাকে এই পুজো কমিটি ।

লেখা ও ছবিঃ
ইন্দিরা মুখার্জি
কলকাতা